বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি

APA

 

 

 

 

জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল

NIS

 

  • শুদ্ধাচার কৌশল কর্ম-পরিকল্পনা
  • ফোকাল পয়েন্ট কর্মকর্তা ও বিকল্প কর্মকর্তা
  • ত্রৈমাসিক/ষান্মাসিক পরিবীক্ষণ/মূল্যায়ন প্রতিবেদন
  • আইন/বিধি/নীতিমালা/পরিপত্র/

 

 

 

সেবা প্রদান প্রতিশ্রুতি (সিটিজেন চার্টার)

cityzen charter

   

অভিযোগ প্রতিকার ব্যবস্থাপনা       

Complain

 

তথ্য অধিকার                                       

  • দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও আপিল কর্তৃপক্ষ
  • আবেদন ও আপিল ফরম
  • স্বপ্রণোদিতভাবে প্রকাশযোগ্য তথ্যসমূহ
  • আইন/বিধি/নীতিমালা পরিপত্র
   

আমাদের বিষয়

Management

 

 

 

স্বাস্থ্যসেবা                                      

Stethescope.png
  • বহির্বিভাগ              
  • ইমার্জেন্সী বিভাগ
  • প্যাথলজি
  • রেডিওলজি
  • আইসিইউ
  • ডায়ালাইসিস

                                                                                      

 

বিজ্ঞপ্তি 

Circular

কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতাল (সিপিএইচ) 

কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতাল (সিপিএইচ), ঢাকা ১৯৫৪ সালে ১১.৫ একর ভূমির উপর ৭০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের কার্যক্রম শুরু হয়। দীর্ঘ দিন যাবৎ জনবল ও চিকিৎসা সরঞ্জামাদির স্বল্পতার মধ্য দিয়ে দূর্বল চিকিৎসা সেবা কার্যক্রম চলছিল। এহেন অবস্থার প্রেক্ষিতে পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের আধুনিক চিকিৎসা-সেবার প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা “বাংলাদেশ পুলিশ হাসপাতালসমূহ আধুনিকায়ন (১ম পর্যায়ে ৭টি)” শীর্ষক প্রকল্প গ্রহণ করেন। তিনি গত ১২/০৫/১৯৯৯ তারিখ বর্ণিত প্রকল্পের আওতায় কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতাল, রাজারবাগ, ঢাকায় ১০ তলা ভবনের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন। তাঁর এই উদ্যোগের ফলে পুলিশ সদস্য ও তাদের পরিবারের চিকিৎসা সেবায় নতুন মাত্রা যোগ হয়। প্রকল্পটি ১ জুলাই ১৯৯৭ ইং তারিখে শুরু হয়ে ৩০ জুন ২০০৫ এ সফল ভাবে সমাপ্ত হয়। চিকিৎসা সেবার মান বৃদ্ধির সাথে সাথেচিকিৎসা প্রার্থীর সংখ্যাও দিন দিন বাড়ছে। বর্তমানে অত্র হাসপাতালে বহির্বিভাগ, অন্তঃবিভাগ, অপারেশন থিয়েটার, প্যাথলজি, ফিজিওথেরাপীসহ মোট ১৫ (পনের) টি বিভাগ চালু রয়েছে।

পুলিশ বাহিনীর সদস্য সংখ্যা বর্তমানে প্রায় ২(দুই) লক্ষ ও তাদের পরিবারের সদস্যসহ প্রায় ১০ (দশ) লক্ষ সদস্যের চিকিৎসা সেবা পুলিশ হাসপাতাল হতে প্রদান করা হয়। এছাড়া আনসার বাহিনীর সদস্য ও বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মাচারীদেরও চিকিৎসা সেবা প্রদান করতে হয়। কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালের প্রতিদিন বহির্বিভাগে ২০০০ থেকে ৩০০০ জন রোগী, ইমার্জেন্সি বিভাগে ২৫০ থেকে ৩০০ জন রোগী ও অন্তঃবিভাগে ৩৫০ থেকে ৫০০ জন রোগী চিকিৎসা নিয়ে থাকে। কোভিড-১৯ মহামারিতে ভর্তি রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে ৭০০ এর অধিক হয়ে থাকে। পুলিশ বাহিনীর সদস্য সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আশা রোগীর সংখ্যাও ক্রমশ: বৃদ্ধি পাচ্ছে। এছাড়া রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সরকারি কর্মকর্তা/কর্মচারীগণ এ হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা সেবা নিয়ে থাকেন।

কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালকে গত 11 এপ্রিল 2022 তারিখে ২৫০ শয্যা থেকে ৫০০ শয্যায় উন্নীত করণের প্রশাসনিক অনুমোদন দেয়া হয়। ইতোমধ্যেই এ হাসপাতালে 500 শয্যার জন্য প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নির্মাণ করা হয়েছে। বিভিন্ন বিভাগে সেবা প্রদানের জন্য রাজস্ব খাতে জনবলের পদ সৃজন হয়েছে এবং আরো পদ সৃজনের উদ্যোগ অব্যাহত রয়েছে।

 

 

CoronaVirus


 সার্ভিসসমূহ

সিপিএইচ-এ যেসব প্রধান প্রধান মেডিকেল ইকুইপমেন্টস স্থাপন করা হয়েছে এবং যেসব সার্ভিস/সেবা রোগীদের দেয়া হয়ে থাকে তার মধ্যে রয়েছে:

০১) অত্যাধুনিক অপারেশন থিয়েটার

০২) ডায়ালাইসিস ইউনিট

০৩) ১৬০ স্লাইচ সিটিস্ক্যান মেশিন

০৪) এমআরআই মেশিন

০৫) ২৪ ঘন্টা ইমার্জেন্সি সার্ভিস

৬) ইকো-কার্ডিওগ্রাম সুবিধা

০৭) ডিজিটাল ম্যামোগ্রাফী

০৮) ইটিটি সুবিধা

০৯) ডিজিটাল এক্স-রে মেশিন

১০) ৪-ডি আল্ট্রাসনোগ্রাম মেশিন

১১) ব্লাড ব্যাংক

১২) সমস্ত হাসপাতালে সিসিটিভি সুবিধা

এছাড়া কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালের কার্যক্রম ও রোগীর তথ্য ডিজিটাল ফরমেটে সংরক্ষণ ও মনিটরিং করার জন্য হসপিটাল ইনফরমেশন সিস্টেম, ল্যাবরেটরি ইনফরমেশন সিস্টেম সফটওয়ার চালু করা হয়েছে ।